ছোট্ট গল্প : কন্যা সন্তান

iman-maleki-1

মাথা নীচু করে বসে থাকা মেয়েটার দিকে তাকিয়ে তার বাবা গম্ভীর কণ্ঠে বলে উঠল, “নিজে পড়ে জয়েন্টে ভালো rank করেছো ঠিকই কিন্তু পড়তে তো হবে প্রাইভেটেই…! আবার তোমার ভাইও বলেছে ইঞ্জিনিয়ারিংই পড়বে। এত খরচা আমার পক্ষে করা সম্ভব নয়। তুমি জেনারেলে গ্রাজুয়েশনটা করো। আর অমিয় বাবুর সাথে কথাটা বলাই আছে। বিয়েটা হয়ত সেকেন্ড ইয়ারেই হয়ে যাবে তোমার। ছেলে হিসাবে তোমার ভাইএর চাকরী পাওয়াটা বেশী দরকার।”

২০ বছর পর –

টেলিফোনে মেয়ের কান্নার আওয়াজ- “বাবা আমায় ক্ষমা কর। আর আমাদের বাড়িতে কোনদিনও এসো না। তোমার শেষ কেমোথেরাপির পর তোমার জামাই অমর কে বলেছিলাম, বাবা এরপর থেকে আমাদের সাথেই থাকুক, ভাইও বিদেশে। তার উত্তরে আমাকে বললো, ‘নিজের তো এক পয়সা রোজগার করার মুরোদ নেই, একটা পাতি গ্রাজুয়েট…এখন নিজের সাথে সাথে নিজে বাবাকেও আমার ঘাড়ে….লজ্জা করল না বলতে‘?”

Writer : Unknown

পশ্চিমবঙ্গের নাম হোক "বাংলা"

“বাংলার মাটি, বাংলার জল, বাংলার বায়ু, বাংলার ফল-
পুন্য হউক, পুন্য হউক, পুন্য হউক হে ভগবান।।
বাংলার ঘর, বাংলার হাট, বাংলার বন, বাংলার মাঠ-
পূর্ণ হউক,পূর্ণ হউক,পূর্ণ হউক হে ভগবান।।“
                                                   – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
 
এর পরেও কি “বাংলা” নামটা অযৌক্তিক মনে হবে? রবীন্দ্রনাথ তাঁর রচনায় পূর্ব ও পশ্চিমবাংলাকে  বাংলা বা বাংলাদেশ বলেই উল্লেখ করেছেন। প্রতিবেশী বাংলাদেশ তাদের উপযুক্ত নামটা  আগেই নিয়েছে। “বাংলা” নামটা নিতে আমাদের এত অনীহা কেন ?
 
আমাদের রবীন্দ্র আনুরাগী মুখ্যমন্ত্রী , “বাংলা” নামটা এড়িয়ে, পাশ কাটিয়ে যাচ্ছেন কেন? বাংলা নামটা যেহেতু CPM পার্টী উত্থাপন করেছে তাই কি? আমাদের অনুরোধ ক্ষুদ্র রাজনীতির গন্ডী থেকে বেরিয়ে “বাংলা” (also in English “BENGAL”) নামটা পুনর্বিবেচনা করে গ্রহন করুন ।. এটাই হবে সবচেয়ে উপযুক্ত নাম। রবীন্দ্রনাথের জন্ম সার্ধশতবর্ষে এর চেয়ে ভাল শ্রদ্ধার্ঘ আর কি হতে পারে?
 
মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জ্জীকে আনুরোধ আপনি একটু ভেবে দেখুন। পশ্চিমবঙ্গ নামটা কোনমতেই গ্রহনযোগ্য হবে না। “বাংলা” এবং ইংরাজীতে “BENGAL” হবে উপযুক্ত নামকরন। দুটোই থাকবে যেমন ভারত এবং ইন্ডিয়া । “Bengal” নামটা ইতিহাসের অনেক ঘটনার সাক্ষী, তাই এটাকেও সহজে ত্যাগ করা যাবে না। তা না হলে- আমাদের Royal Bengal Tiger হবে – Royal পশ্চিমবঙ্গীয় Tiger । আমাদের আনুরোধ তাড়াহুড়ো করে, গভীরে চিন্তা ভাবনা না করেই একটা যেমন তেমন ভাবে নামকরন করবেন না।বাংলা (ইংরাজীতে বেঙ্গল) নামটা সর্বজনগ্রাহ্য এবং সঠিক হবে।
উপরোক্ত ব্লগপোষ্টটি আমি লিখেছিলাম ২০১১ সালে when there was a move to rename West Bengal. ২০১৬ সালের update given below for your information.
Update 2016 : আনন্দের সঙ্গে জানাই যে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী বাংলা (ইংরাজীতে বেঙ্গল) নামটাই বেছে নিয়েছেন। এখন সময়ের অপেক্ষা।

বাংলা মধুরতম ভাষা

Bengali voted as the sweetest language in the world. wow !……….conducted by UNESCO,  spanish and Duth follows next.” This type of news being circulated in Twitter & Facebook social nework.
বাংলা নববর্ষে এর চেয়ে ভাল খবর আর কি হতে পারে! TWITTER আর FACEBOOK যদি বিশ্বাসযোগ্য হয় তাহলে জানাই যে বাংলা ভাষা এই বিশ্বের সবচেয়ে মধুরতম (SWEETEST) ভাষা হিসাবে নির্ব্বাচিত হয়েছে। খবরে প্রকাশ UNESCO’র এই ONLINE VOTING এ বাংলা, স্প্যানিশ ও ডাচ (DUTCH) যথাক্রমে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় মধুর ভাষা নির্বাচিত হয়েছে। খবরটা সোস্যাল নেটওয়ার্ক ছাড়া কোথাও প্রচারিত হয় নি। খবরটা UNESCO Officially এখনো প্রকাশ করেনি, হয়ত প্রকাশের অপেক্ষায় আছে। এবং সেখান থেকে কোনোসুত্রে খবরটা বেরিয়েছে। হয়ত রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫০তম বর্ষপুর্তী উপলক্ষে ইউনেস্কো ঘোষনা করার অপেক্ষায়।এখন অপেক্ষা করা ছাড়া সঠীক খবর জানার কোনো উপায় নেই। প্রার্থনা করি খবরটা যেন সত্য হয়। এখন অবধি ইউনেস্কোর তরফ থেকে কোন প্রতিবাদ বা আপত্তি আসেনি তাছাড়া দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানাধিকারির নামও প্রচার হচ্ছে, তাই মনে হচ্ছে খবরটা সত্য। বাংলা ভাষীদের জন্য এটা একটা গর্ব্ব করার মত খবর। এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা।

বাংলা ভাষা

Bengali or Bangla (বাংলা ) একটি  Indo-Aryan ভাষা, যার উৎপত্তি সংস্কৃত ভাষা থেকে । বাংলা ভাষীর সঙ্খ্যা ২৩০ মিলিয়ন বা তারো বেশী । বিশ্বের সাবচেয়ে বেশি কথিত ভাষা। বাংলাদেশ , যার লোক সঙ্খ্যা ১২০+ মিলিয়ন, সকলেই বাংলায় কথা বলে। ভারতবর্ষের পশ্চিমবঙ্গের জনসঙ্খ্যা ৮০+ (২০০১ জনগননা) মিলিয়ন, সকলেই বাংলাভাষী। এছাড়া ভারতের  এবং  বিশ্বের নানা প্রান্তে প্রচুর বাংলা ভাষী আছেন, যারা বাংলায় কথা বলতে ভালবাসেন। বাস্তবে বাংলাভাষীর সঙ্খ্যা আমাদের আনুমানের  অনেক বেশী । এটা জেনে খুব ভাল লাগে।

কিন্তু দুঃক্ষ হয় যখন দেখি বর্তমান প্রজন্মের ছেলে মেয়েরা বাঙ্গলা নিয়ে চর্চা করতে খুব একটা আগ্রহী নয় কারন এখন সবাই carrier Oriented course নিয়ে পড়াশুনা করতেই বেশি আগ্রহ। আজকাল কয়জন বাংলা নিয়ে উচ্চাশিক্ষা লাভ করে, তা হয়ত হাতে গোনা যাবে। বাংলা স্কুলে বা বাংলা নিয়ে উচ্চশিক্ষা এখন Last priority. এটা পশ্চিম বঙ্গের ছবি। বাংলাদেশে হয়ত এতটা নয় কারন সেখানে বাংলা জাতীয় ভাষা।

বর্তমান প্রজন্মের ছেলে মেয়েদের বাঙ্গলা নিয়ে বিলাসিতা করার সময় নেই কিন্তু তার জন্য তারা বাংলা সাহিত্যের অমুল্য মনি মানিক্যের স্বাদ থেকে ছিরবঞ্চিত। তারা কোনোদিন রবিন্দ্রনাথ, শরৎচন্দ্র, বঙ্কিম সাহিত্যের স্বাদ পাবে না। বাঙ্গালীর ঘরে বাঙ্গালী হয়ে জন্মে বাংলা সাহিত্যের স্বাদ নিতে  অপারগ। এটা ভাবলে খারাপ লাগে। কিন্তু কিছু করার নেই। সময়টাই এরকম। এখন MBA এবং ENGINEERING এর চাপে বিশুদ্ধ বিজ্ঞান ও ভাষায় উচ্চশিক্ষার হার আগের তুলনায় অনেক কমে এসেছে। এইভাবে চললে ভবিষ্যতে বাংলা ভাষীর সঙ্খ্যা কমে আসবে তাহাতে কোনো সন্দেহ নেই।

বাংলাভাষীর আজকের সঙ্খ্যাটাই আমার এই ব্লগ লেখার কারন । তাছাড়া নিজের ভাষা যতো সহজে  প্রকাশ করা যায়, অন্যা ভাষায় তা হয় না। হয়ত আমার এই ব্লগ  কেও  পড়বে না , পড়বার উপযুক্তও হয়ত হবে না কারন আমি কনো  লেখক বা কবি নই। আমি আপনাদেরই মতো একজন।